১৩ নভেম্বর, একজন কিংবদন্তির জন্মদিন

কিংবদন্তি কথাসাহিত্যিক, বাংলা চলচ্চিত্র, টেলিভিশন নাটকের নন্দিত নির্মাতা হুমায়ূন আহমেদের জন্মদিন ১৩ নভেম্বর। এদিন তার লেখা সংলাপ, গান ও সাহিত্যে তাকে স্মরণ করবেন ভক্ত অনুরাগীরা।

এই কিংবদন্তির জন্মদিন উপলক্ষে দেশের টিভি চ্যানেলগুলোতেও দিনভর অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে ‘হুমায়ূন মেলা’।

সকাল ৬টায় প্রচার হবে নাটক ‘তারা তিনজন হে পৃথিবী বিদায়’। সকাল ৮টায় ‘হুমায়ূন আহমেদের হাতে কয়েকটি নীল পদ্ম’ শিরোনামের একটি অনুষ্ঠান। সকাল ৯টা ৫মিনিটে প্রচার হবে ‘হুমায়ূন আহমেদের নীলপদ্মের ছোঁয়া’ শিরোনামের একটি সেলিব্রেটি শো। এখানে অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন ফেরদৌস ও রিয়াজ। সকাল ৯টা ৩০মিনিটে প্রচারে যাবে ‘যে থাকে আঁখি পল্লবে’, সকাল ১০টা ১০মিনিটে ‘সোয়া চান পাখি’ অনুষ্ঠান। সকাল ১০টা ৩০ মিনিটে প্রচার হবে ‘হুমায়ূন আহমেদের নীলপদ্মের ছোঁয়া’ অনুষ্ঠানের দ্বিতীয় পর্ব। এখানে অতিথি হবেন কুদ্দুস বয়াতী, এস আই টুটুল ও সেলিম চৌধুরী। বেলা ১১টা ৫ মিনিটে সরাসরি প্রচার করা হবে ‘সকাল বেলার রোদ্দুর’ নামের অনুষ্ঠান। এখানে অতিথি প্রাণ রায়। বিকেল ৪টা ৫ মিনিটে প্রচার হবে ‘হুমায়ূন আহমেদের নীলপদ্মের ছোঁয়া’ অনুষ্ঠানের তৃতীয় পর্ব। এই পর্বে অতিথি থাকবেন জাহিদ হাসান ও মাহফুজ আহমেদ।

প্রথম উপন্যাস ‘নন্দিত নরকে’ প্রকাশের পরপরই হুমায়ূন আহমেদের খ্যাতি ছড়িয়ে পড়ে চারদিকে। উপন্যাস ও নাটকে তাঁর সৃষ্ট চরিত্রগুলো তরুণ-তরুণীদের কাছে অনুকরণীয় হয়ে ওঠে। জনপ্রিয়তার জগতে তিনি একক ও অনন্য। গল্প-উপন্যাস রচনা ছাড়াও এ দেশের তরুণসমাজকে বইমুখী করার পেছনে তাঁর ভূমিকা ছিল গুরুত্বপূর্ণ।

আনুষ্ঠানিকতার চেয়ে আড্ডাকেই তিনি উপভোগ করতেন। কোথাও গেলেও যেতেন দল বেঁধে। আনুষ্ঠানিকভাবে কখনোই তাঁর জন্মদিন উদ্্যাপন করেননি। জন্মদিনে দল বেঁধে আসা ভক্ত-স্বজনদের তিনি সঙ্গ দিতেন। শুভানুধ্যায়ীদের আয়োজনকে রসিকতায় মাতিয়ে তুলতেন। উৎসবমুখর করে তুলতেন। ২০১২ সালের ১৯ জুলাই যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইয়র্কে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি। এর পর থেকে বাংলা সাহিত্যের এই জননন্দিত লেখক, নাট্যকার ও চলচ্চিত্রকারের জন্মদিন নানা আনুষ্ঠানিকতায় উদ্‌যাপিত হচ্ছে।

শেয়ার করুন:
  • 10
    Shares

You May Also Like